‘দি ফ্রেন্ড অব হিউম্যানিটি’ পদক গ্রহন করছেন নোবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম অহিদুজ্জামান।

সম্প্রতি জাপান সফরকালে জাপানের অন্যতম বৃহৎ বৌদ্ধ সংগঠন ‘তকুরঞ্জি বুদ্ধিস্ট সোসাইটি’ গৌতম বুদ্ধের জন্মোৎসব উপলক্ষে সাত দিনব্যাপি চলা ‘On the Occasion of Hanamatsuri Festival’ নামের এক আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানে ‘তকুরঞ্জি এশিয়ান বুদ্ধিস্ট পিস এ্যাওয়ার্ড-২০১৯’, ‘দি ফ্রেন্ড অব হিউম্যানিটি’ পদকে ভূষিত করে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম অহিদুজ্জামানকে। উক্ত অনুষ্ঠানে জাপান, আমেরিকা, আফ্রিকা, ব্রিটেন, চীনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শান্তিকামী শিক্ষাবিদ ও বুদ্ধিজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। সংগঠনটি বিশ্বভ্রাতৃত্ববোধ, মানবতা, ধর্মীয় সহাবস্থান, সহিষ্ণুতা, সম্প্রীতি ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার স্বীকৃতি হিসেবে তাঁকে এই পদকে ভূষিত করে। ধর্মীয় সংখ্যালঘু, সমাজের পিছিয়ে পরা জনগোষ্ঠী বিশেষ করে সুবিধাবঞ্চিত নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় ড. অহিদুজ্জামানের অসামান্য অবদানকে এই পুরস্কারের জন্য বিবেচনায় আনা হয়। জাপান এই প্রথম কোন ব্যাক্তিকে দি ফ্রেন্ড অব হিউম্যানিটি এ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করে। তিনি এ এ্যাওয়ার্ডটিকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মহান মুক্তিসংগ্রামে লাখো শহিদ ও নির্যাতিত মা বোনদের উৎসর্গ করেন। পদক গ্রহণ অনুষ্ঠানে ‘‘The Importance of Cultural Diversity: The Role of Religious Community’’ শিরোনামে বক্তৃতায় ধর্মীয় স্বাধীনতা ও সম্প্রীতির কল্যাণে শান্তি এবং বন্ধন রক্ষায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার জীবন-দর্শনের ভূয়ষী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন- সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মোকাবেলা করতে হলে আমাদের আস্থা রাখতে হবে শেখ হাসিনা ঘোষিত স্লোগান-‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ এর উপর। তিনি তাঁর বক্তৃতায় আমৃত্যু বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় মানবতাবাদ, ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক গোষ্ঠীর স্বার্থ সুরক্ষা, সমাজে দরিদ্র, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী ও দলিত শ্রেণি এবং নারীর যথাযথ মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় অবিরাম সংগ্রাম অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।