Department of Bangla


Message from Chairman

ড. মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন (চন্দন আনোয়ার)

Chairman
Department of Bangla

চেয়ারম্যানের বাণী

জাতি হিসেবে বাঙালির সুদীর্ঘকালের স্বপ্ন বাংলা ভাষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি নির্ভর অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক চেতনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা এবং বাংলা ভাষার সাংবিধানিক ও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অপরিসীম ত্যাগ ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত স্বপ্নের বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ ও উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য বাঙালির জাতিসত্তা তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপুল পরিচর্যার বিকল্প নেই। এই পরিচর্যার অংশ হিসেবে উচ্চশিক্ষায় বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের পাঠ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। হাজার বছরের বাঙালির জাতিসত্তার বিকাশে তো বটেই, পাকিস্তানি দুঃশাসনের  বিরুদ্ধে বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনে অত্যন্ত সক্রিয় ও গুরুত্বপূর্ণ  ভূমিকা পালন করেছে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য। বাংলা ভাষার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, উর্দু ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষা নির্মূলের গোপন অভীপ্সা, বাঙালি জাতীয়তাবাদ তথা বাংলা সাহিত্য ও সাহিত্যিকদের প্রতি শ্যেনদৃষ্টি এবং রবীন্দ্রনাথ-নজরুলের বিরুদ্ধে অবস্থান; প্রতিটি ক্ষেত্রেই, বাঙালি প্রগতিশীল লেখকগণ কলম চালিয়ে এবং রাজপথের সংগ্রামের অংশী হয়ে অপ্রতিরোধ্য প্রতিবাদ রচনা করেন। বাঙালির জাতীয়তাবাদী চেতনা তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিকাশ আর বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের বিকাশের ইতিহাস শরীরের রক্ত-মাংসের সম্পর্কের মতো অবিভাজ্য। এই বাস্তব প্রয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের অনুমোদন সাপেক্ষে ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের ৩১ জানুয়ারি  নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগ খোলা হয়। অনুমোদন প্রাপ্তির পরে ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব মুহাম্মদ মুশফিকুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। ২০ নভেম্বর ২০১৭ খ্রি. তারিখে বাংলা বিভাগে একজন সহযোগী অধ্যাপক ও একজন প্রভাষক যোগদান করেন। সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন (চন্দন আনোয়ার) চেয়ারম্যানের দায়িত্ব (১২ ডিসেম্বর ২০১৭) প্রাপ্তির পরে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রম। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের ৩৭তম সভায় (১৮ ডিসেম্বর ২০১৮) বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের জন্য ৩ ক্রেডিটের (১০০ নম্বর) ‘বাংলা ভাষা ও সাহিত্য’ কোর্স অনুমোদিত হয় এবং  বাংলা বিভাগের উপরে অর্পিত হয় কোর্স পরিচালনার দায়িত্ব। অতঃপর একাডেমিক কাউন্সিলের ৪০ তম সভায় (২৫ এপ্রিল ২০১৮) বাংলা বিভাগে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির সিদ্ধান্ত অনুমোদিত হয়। একই সভায় অনুমোদন পায় বিভাগের প্রথম কারিকুলাম কমিটি।  বিভাগের চেয়ারম্যানকে চেয়ারম্যান, কর্মরত সম্মানিত সকল শিক্ষককে সদস্য ও কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. সৈয়দ আজিজুল হক, আইবিএস, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক প্রফেসর ড. স্বরোচিষ সরকার এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মহীবুল আজিজকে বহিঃস্থ সদস্য করে গঠিত হয় বাংলা বিভাগের কারিকুলাম কমিটি। কমিটি কর্তৃক  স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির জন্য ১৬০ ক্রেডিটের একটি যুগোপযোগী ও কর্মমুখী পূর্ণাঙ্গ কারিকুলাম প্রণয়ন করা হয়। বাংলা ভাষা ও সাহিত্য পাঠ ও গবেষণার পাশাপাশি ইংরেজি ভাষা-সাহিত্য ও কম্পিউটার শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে কারিকুলামে। একাডেমিক কাউন্সিলের ৪৪তম সভায় (১৮ ডিসেম্বর ২০১৮) প্রবেশনারি এবং ৪৭ তম সভায় ( ২১ মে ২০১৯) পূর্ণাঙ্গ কারিকুলাম অনুমোদন পায়। 

২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ৫১জন শিক্ষার্থী ভর্তির মধ্য দিয়ে বাংলা বিভাগের অনার্স পর্যায়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে বিভাগে ২ জন সহযোগী অধ্যাপক, ১ জন সহকারী অধ্যাপক এবং ১০ জন প্রভাষক কর্মরত আছেন। সহায়ক কর্মচারী হিসেবে কর্মরত আছেন একজন নিম্নমান সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর ও একজন অফিস সহায়ক। 

একাডেমিক কার্যক্রমের পাশাপাশি ক্রীড়া, সংস্কৃতি ও শিল্প-সাহিত্য চর্চায় বাংলা বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলছেন। ইতোমধ্যে বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত চৈত্রসংক্রান্তি ও বাংলা নববর্ষ অনুষ্ঠান ক্যাম্পাসের সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

গবেষণা ও প্রকাশনার দিকে বাংলা বিভাগ বিশেষভাবে মনোযোগী। ২ জন পিএইচডি ডিগ্রিধারী সহযোগী অধ্যাপক, ১ জন সহকারী অধ্যাপক এবং ১০ জন প্রভাষক প্রত্যেকেই একাডেমিক কার্যক্রমের পাশাপাশি নিয়মিত গবেষণার কাজে নিয়োজিত। ইতোমধ্যে বাংলা বিভাগের প্রথম প্রকাশনা হিসেবে ‘ভাষা ও সাহিত্যের যুগলবন্দি’ শিরোনামের একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া ‘বঙ্গবন্ধন্ধু ও বাংলা ভাষা-সাহিত্য’ শিরোনামে দুই খন্ডে গ্রন্থ প্রণয়নের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। একই শিরোনামে একটি আন্তর্জাতিক সেমিনার করার পরিকল্পনা চলছে। 

 

ড. মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন

(চন্দন আনোয়ার)

চেয়ারম্যান, বাংলা বিভাগ