You are here: HomeREGISTRAR OFFICENews Flash‘শ্রেণিকক্ষ-শিক্ষক নেই তবু নতুন বিভাগ’ শীর্ষক খবরের প্রতিবাদ।

‘শ্রেণিকক্ষ-শিক্ষক নেই তবু নতুন বিভাগ’ শীর্ষক খবরের প্রতিবাদ।

Share

নোবিপ্রবি/রেজি/জনসংযোগ-০৭/২০১৬/  ১২ নভেম্বর ২০১৬


‘শ্রেণিকক্ষ-শিক্ষক নেই তবু নতুন বিভাগ’ শীর্ষক খবরের প্রতিবাদ।

 

বরাবর
সম্পাদক ও প্রকাশক
প্রথম আলো
১০০ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ
কারওয়ান বাজার, ঢাকা।


বিষয় : ‘শ্রেণিকক্ষ-শিক্ষক নেই তবু নতুন বিভাগ’ শীর্ষক খবরের প্রতিবাদ।

আজ ০৪ ডিসেম্বর ২০১৬ প্রথম আলো পত্রিকার আট পৃষ্ঠায় ‘শ্রেণিকক্ষ-শিক্ষক নেই তবু নতুন বিভাগ’ শীর্ষক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে একটি অর্ধসত্য সংবাদ ছাপানো হয়েছে। আমরা এ সংবাদের প্রতিবাদ জানাচ্ছি। প্রকাশিত সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শ্রেণিকক্ষ সংকুলান ও শিক্ষক নিয়োগ না করেই ওশনোগ্রাফি (সমুদ্রবিজ্ঞান) নামে নতুন একটি বিভাগ খোলা হয়েছে।

আমাদের বক্তব্য হলো, নদীমাতৃক বাংলাদেশের সুবিশাল সমুদ্রসীমা নানা প্রাকৃতিক সম্পদে পরিপূর্ণ। এখানে রয়েছে জীব-বৈচিত্র, মৎস্য ও খনিজ সম্পদের অপূর্ব ভান্ডার। কিন্তু দক্ষ মানবসম্পদের অপ্রতুলতায় এর সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না। এদেশে ওশানোগ্রাফি বিষয়ে (সমুদ্রবিজ্ঞান) সম্ভাবনায় চাকরির বাজার থাকলেও উচ্চশিক্ষার অভাবে এর সুফল ভোগ করা যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতি বিবেচনায় এনে সমুদ্রবিজ্ঞান বিষয়ে পঠন-পাঠন ও গবেষণার সুযোগ সৃষ্টির পাশাপাশি এদেশের আর্থ সামাজিক চাহিদা পূরণে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) ‘ওশনোগ্রাফি’ নামে নতুন এ বিভাগটি চালু করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন সম্প্রতি উপকূলের ক্যামব্রিজ নামে খ্যাত নোবিপ্রবিতে এই বিভাগটি খোলার অনুমোদন দেয়। গত বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর ২০১৬) উপাচার্যের সভাপতিত্বে তাঁর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের এক জরুরি সভায় ওই বিভাগে প্রথমবারের মতো চলতি শিক্ষাবর্ষ (২০১৬-২০১৭) হতে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি নেয়ার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। বিজ্ঞান অনুষদের অধীন বি’‘ গ্রুপের এ বিভাগটির আসন সংখ্যা ৩০ টি। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা ও উপজাতি কোটায় ৩ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে।

আমরা আরো বলতে চাই, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার চেষ্টায় আন্তর্জাতিক আদালতের এক রায়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ এক লাখ ১১ হাজার বর্গকিলোমিটার সমুদ্র এলাকার সার্বভৌমত্ব লাভ করে। তদপরবর্তী সময়ে ২০১৪ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ওশনোগ্রাফি বা সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগ খোলার ব্যাপারে আগ্রহী হন। এরই ধারাবাহিকতায় উপকূলীয় অঞ্চল নোয়াখালীতে ওশনোগ্রাফির মতো বিশ্বমানের একটি বিভাগ চালু করা হয়। যাতে করে ছাত্র-ছাত্রীরা বাংলাদেশের সুবিশাল এ সমুদ্র এলাকায় থাকা অঢেল সম্পদ সম্পর্কে জ্ঞান আহরণ করতে পারে, পাশাপাশি দেশের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার স্বার্থে সেই সম্পদকে কাজে লাগাতে পারে। বর্তমান চাকরির বাজারে সম্ভাবনাময় যেসব ক্ষেত্র রয়েছে তার মধ্যে সমুদ্রবিজ্ঞান অন্যতম। এ বিষয়ে পড়াশুনা করে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ফিশারিজ কোম্পানি, রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট, নৌবিষয়ক ও সমুদ্রবিষয়ক গবেষণামূলক প্রতিষ্ঠানে ক্যারিয়ার গড়তে পারবে ছাত্র-ছাত্রীরা। গতানুগতিক চাকরির বাইরে পরিবেশ অধিদপ্তর, আবহাওয়া অধিদপ্তরের ফিশারিজ শাখা, ইউএনডিপি সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোতেও এ বিভাগ থেকে পাশ করা শিক্ষার্থীদের কাজের সুযোগ তুলনামূলক বেশি। তাছাড়া শিক্ষার্থীরা চাইলে দেশের বাইরেও এ বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়তে পারবে।নতুন এ বিভাগ চালুর মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীরা দেশকে সেবা করার সুযোগ পাবে। এ বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য অন্যান্য বাইরের দেশগুলোতে রয়েছে বৃত্তির অফুরন্ত সুযোগ। ভাল ফলাফলধারীদের নরওয়ে, ডেনমার্ক ও ‘ইরাসমাস’ বৃত্তি লাভের সুযোগ রয়েছে। এছাড়াও থাইল্যান্ডের এশিয়ান ইনিস্টিটিউট অব টেকনোলজি এবং যুক্তরাজ্য, ভিয়েতনাম, সুইডেনসহ বিভিন্ন দেশে বৃত্তি নিয়ে এমএস-পিএইচডি করার সুযোগ রয়েছে ওশনাগ্রাফিতে গ্রেডুয়েটদের।

আমরা দৃঢভাবে বলতে চাই, দেশের তরুণ মেধাবী শিক্ষার্থীদের উজ্জ্বল ভবিষ্যত লক্ষ্যকে সামনে রেখেই নোবিপ্রবিতে ওশনাগ্রাফির মতো এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

পরিশেষে বলতে চাই, সংবাদে যে তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে তা সত্য নয়। এমতাবস্থায়, প্রথম আলো পত্রিকা কর্তৃপক্ষের প্রকাশিত সংবাদটির একই জায়গায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রেরিত এ প্রতিবাদ লিপি অনুযায়ী একটি সংশোধনী ছাপানোর অনুরোধ করা গেল।

 

sign iftekhar hossain
ইফতেখার হোসাইন
জনসংযোগ কর্মকর্তা
জনসংযোগ শাখা, রেজিস্ট্রার দপ্তর
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

Latest News

Noakhali Science And Technology University, Noakhali-3814, Bangladesh