মন্ত্রণালয় কর্তৃক আরোপিত নিয়োগ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষক সমিতির দ্বিতীয় দিনের অবস্থান কর্মসূচি


প্রেস রিলিজ
 
মন্ত্রণালয় কর্তৃক আরোপিত নিয়োগ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষক সমিতির দ্বিতীয় দিনের অবস্থান কর্মসূচি
 
সাবেক উপাচার্যের অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগে গত ১৯ মাস যাবত শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরণের নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা আরোপিত রয়েছে। এর ফলে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী পদে নিয়োগপ্রাপ্ত ৬০ জন শিক্ষকসহ কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকুরি স্থায়ীকরণ বন্ধ রয়েছে। ইতোমধ্যে অনেক শিক্ষকের পরবর্তী পদে পদোন্নতির সময়ও প্রায় ১ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। তাদের পরে স্থায়ী পদে নিযুক্ত শিক্ষকগণও ইতোমধ্যে পদোন্নতি পেয়ে গেছেন। ফলে শিক্ষকদের মাঝে একধরণের বৈষম্য দেখা দিয়েছে। এছাড়াও অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেকগুলো বিভাগেই পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই, মাত্র ২ জন শিক্ষক দিয়ে ২টি শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম চলছে। ফলে শিক্ষার মান ক্রমাগত খারাপ হচ্ছে এবং শিক্ষার্থীরা অবহেলিত হচ্ছে। এর প্রেক্ষিতে শিক্ষকদের মাঝে সৃষ্ট বৈষম্য নিরসনে ও বিশ্ববিদ্যালয়ে সুষ্ঠু শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিতকরণে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে গত ০১ অক্টোবর থেকে শিক্ষক সমিতি ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে শিক্ষকগণ সকল একাডেমিক কার্যক্রম থেকে বিরত রয়েছেন। মাননীয় উপাচার্য মহোদয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী, মাননীয় উপমন্ত্রী ও শিক্ষা সচিবের সাথে আলোচনা করে আমাদের বারবার আশ্বাস দিলেও আমরা এখন পর্যন্ত কোনো আশাব্যঞ্জক ফলাফল পাইনি।
ইতোমধ্যে শিক্ষার্থীদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ টার্মের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা কার্যক্রমকে চলমান আন্দোলনের আওতামুক্ত রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং চলমান আন্দোলনকে আরো বেগবান করার লক্ষ্যে ০৯ ডিসেম্বর থেকে অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা করা হয়।
আজ ১০ ডিসেম্বর সকাল ১১.৩০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয় শহিদ মিনার প্রাঙ্গণে শিক্ষকদের উপস্থিতিতে দ্বিতীয় দিনের অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জনাব মজনুর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের হল-প্রভোস্ট, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান ও শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর। সভায় বক্তারা অতি সত্ত্বর এই নিষেধাজ্ঞা উত্তোলনের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতি জোর দাবি জানান। তারা ইউজিসিকেও দ্রুত তদন্ত কাজ সম্পন্ন করে নিয়োগ নিষেধাজ্ঞা উত্তোলনে সহায়তা করার আহ্বান জানান।
আমরা শিক্ষকগণ শিক্ষা কার্যক্রমে ফিরতে আগ্রহী কিন্তু চাকুরিজীবন অনিশ্চিত রেখে এবং তীব্র শিক্ষক সংকটসহ সুষ্ঠু শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে না আনা পর্যন্ত নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা অসম্ভব। আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি যাতে অতিদ্রুত এই নিষেধাজ্ঞা উত্তোলন করে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে দেওয়া হয়।
 
বার্তা প্রেরক
ড. আরাধন সরকার
প্রচার সম্পাদক
নোবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি